মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৩rd August ২০১৫

বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা ও বাংলাদেশ-এই তিনটি এক ও অভিন্ন -মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি


প্রকাশন তারিখ : 2015-08-15

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা ও বাংলাদেশ-এই তিনটি এক ও অভিন্ন। বঙ্গবন্ধুর জনম হয়েছিল বলে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা একটি মানচিত্র ও একটি লাল সবুজ পতাকা পেয়েছি। তবে পাকিসত্মানের ২৩ বছর বঙ্গবন্ধুর চলার পথ সহজ ছিল না। ২৩ বছরের মধ্যে ১৪ বছরই তিনি কারাগারে ছিলেন। তিনি সকল নিপীড়ন ও নির্যাতন উপেক্ষা করে বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগ্রাম করেছেন। তাঁরই স্বাধীনতার ডাকে দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন হয়েছে।

 

আজ (১৫ আগস্ট, শনিবার) দুপুরে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের পূর্ব সাহানে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০-তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০১৫ উপলক্ষে  ‘‘বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম’’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

 

তিনি আরো বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে ইসলামের খেদমতে বঙ্গবন্ধুর মত এত কাজ আর কোনো রাষ্ট্রনায়ক করেননি। তিনি ইসলামের প্রচার-প্রসারে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছেন। টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশব ইজতেমার জন্য জায়গা বরাদ্দ দিয়েছেন। কাকরাইল মসজিদ সম্প্রসারণের জন্য জায়গা দিয়েছেন। মদ, জুয়া, হাউজি ও ঘৌড়দৌড় নিষিদ্ধ করেছেন। অথচ আজ বঙ্গবন্ধুকে ইসলামবিরোধী বলে প্রচার করা হয়।  ইসলাম প্রচার ও প্রসারে বঙ্গবন্ধু সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছেন এবং তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামের জন্য কাজ করে যাচেছন।  শেখ হাসিনার আমলে সারা দেশে যে পরিমাণ মসজিদ মাদ্রাসা স্থাপিত হয়েছে তা অন্য কোন সরকারের আমলে হয় নি।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরস-এর গভর্নর আলহাজ্জ মিজবাহুর  রহমান চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একদিকে একজন খাঁটি বাঙালি অন্যদিকে খাঁটি মুসলমান ছিলেন। তিনি জীবনে প্রথম কারাবরণ করেছিলেন একজন নিরীহ মুসলমানকে জালেমের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য। বঙ্গবন্ধু সারাজীবন নিপীড়িত ও মজলুমের মুক্তির জন্য কাজ করেছেন।

 

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরস-এর গভর্নর শায়খ আলস্নামা খন্দকার গোলাম মাওলা নকশেবন্দী বলেন, শামিত্মর ধর্ম ইসলাম প্রচারের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি বলেন, শতকরা ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশে কুরআন-সুন্নাহ বিরোধী কোন আইন এ দেশে পাশ হবে না। বঙ্গবন্ধু কখনো নাসিত্মকতাকে প্রশ্রয় দেননি। তিনি একসময় পাকিসত্মান আন্দোলনের জন্য ভারতের রাসত্মায় রাসত্মায় ঘুরে অর্থ সংগ্রহ করেছেন। অথচ আজ বঙ্গবন্ধুকে ধর্মদ্রোহী ও ইসলামবিরোধী হিসেবে জাতির কাছে তুলে ধরা হচ্ছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজালের সভাপতিতেব অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

 

এর আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শাহাদাত বরণকারী সদস্যদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগ আজ (১৫ আগস্ট) সকাল ৯.০০ টায় বনানী কবরস্থানে ও সকাল ১০.০০টায় বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে কুরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া, যোহরের নামাযের পর বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

(শায়লা শারমীন)

 সহকারি জনসংযোগ কর্মকর্তা

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

মোবাইল ০১৫৫৩৫৩৬২৭৬


Share with :

Facebook Facebook